ব্রিগেড হবে ২০১৯-এর টার্নিং পয়েন্ট: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

ব্রিগেড হবে ২০১৯-এর টার্নিং পয়েন্ট: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

আগামী ১৯শে জানুয়ারি কলকাতার ব্রিগেড ময়দানে একটি মহাজনসমাবেশের আয়োজন করতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। এই সমাবেশে দেশের অন্যান্য বিরোধী দলগুলিকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে তৃণমূলের তরফে। আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে এই মহা সমাবেশটি জাতীয় রাজনীতিতে একটি টার্নিং পয়েন্ট হতে চলেছে।

এই মহা জনসমাবেশের প্রস্তুতি ও প্রচার সুষ্ঠুভাবে করতে আজ দলের বর্ধিত সাধারন সভার বৈঠকে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনেকগুলি কমিটি গঠন করেন। এই কমিটিগুলিতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সী, শুভেন্দু অধিকারী, ডেরেক ও’ব্রায়েন সহ দলের বিভিন্ন সাংসদ, বিধায়ক, মন্ত্রীকে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ তৈলাক্ত খাবার হৃদরোগের জন্য সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ : দেবি শেঠি !!

 

এক নজরে দেখে নিন ব্রিগেড সমাবেশের প্রস্তুতিতে কি কি সিদ্ধান্ত নিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ঃ

১৯শে জানুয়ারি ব্রিগেড প্যারাড গ্রাউন্ডে আমাদের সভাকে নিয়ে বিধায়কদের উপস্থিতিতে বুথে বুথে ব্লক সভাপতিরা বৈঠক শুরু করুন। গ্রামসভা, পঞ্চায়েত সমিতি, জেলা পরিষদের সব নির্বাচিত এবং পরাজিত প্রার্থীরা সকলেই এই বৈঠকগুলিতে থাকুন। যারা সংরক্ষনের জন্য টিকিট পায়নি, তাদেরও ডাকুন।

প্রতি বুথে ৩০টা করে দেওয়াল লিখুন। রঙ করা নতুন দেওয়ালে দেওয়াল লিখবেন না। রেল ষ্টেশন, হাট বাজারের সামনে লিখুন। এই দায়িত্ব ছাত্র যুবদের বেশী করে নিতে হবে। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় দেওয়াল লিখনের দায়িত্ব নিক।

নিজের নামে প্রচার নয়, নিজের ফটো, আমার ফটো দিয়ে প্রচার নয়। আমার এগুলো ভালো লাগে না। ব্রিগেডের সমাবেশে একটাই পোস্টার হবে, দল যেটা করে দেবে। এখানে প্রচুর দল আসবে। এটাই হবে ২০১৯-এর টার্নিং পয়েন্ট।

আরও পড়ুনঃ  ম্যাজিকের মতো বিদায় নেবে ভুঁড়ি ! কিভাবে বানিয়ে খাবেন,জেনে নিন।

ছত্তিসগড়, রাজস্থান, ঝাড়খণ্ড, বিহার, অসম, ত্রিপুরা, মণিপুর, অরুনাচল প্রদেশ, ওড়িশা সব জায়গা থেকে লোক আসবেন। ডেরেক ও’ব্রায়েন এটার দায়িত্বে থাকবেন। তারা কোথায় থাকবেন সেটার দেখাশোনা ও ব্যবস্থা করবে সুব্রত বক্সী ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। আমি একটা কমিটি করে দিচ্ছি, অ্যাকোমোডেশন কমিটি। এই কমিটিতে থাকবেন সুব্রত বক্সী, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, অরূপ বিশ্বাস, ফিরহাদ হাকিম, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, অর্জুন সিং।

আরেকটি হবে রিসেপশন কমিটি। যারা আসবেন, তাদের নিয়ে আসার জন্য যা কাজ, সেটা সাংসদদের করতে হবে। ডেরেক ও’ব্রায়েন, দীনেশ ত্রিবেদী, সৌগত রায় ও সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এই চারজন এই কমিটিতে থাকবেন। কে কোন নেতাকে আনতে যাবেন, পুরো তালিকা তৈরী করে আমায় জানাবেন। এই কমিটিতে কাকলি ঘোষ দস্তিদার, শশী পাঁজা, মহুয়া মৈত্র, প্রতিমা মণ্ডল, মমতা বালা ঠাকুর, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, অপরুপা পোদ্দার ও শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ও থাকবেন।

একটি ট্রান্সপোর্টেশন কমিটি করতে হবে। এর দায়িত্বে থাকবে শুভেন্দু অধিকারী। আমরা ওখানে কি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করব, সেটা দেখবে ব্রাত্য বসু, অর্পিতা ঘোষ। একটি ডাক্তারদের টীম করতে হবে কারণ প্রায় ৩০/৪০লক্ষ লোক আসবে। শান্তনু সেন, নির্মল মাঝি, সুদীপ্ত এটা দেখবেন।

ফেস্টুন, পোস্টার, প্রচার, পুস্তিকা, প্রচারের সামগ্রীর চেয়ারম্যান পার্থ চট্টোপাধ্যায়, কো-চেয়ারম্যান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও ডেরেক ও’ব্রায়েন। সঙ্গে থাকবেন সৌগত রায়, মণীশ গুপ্ত ও মানস ভুঁইয়া।

 

আরও পড়ুনঃ হলুদ দিয়ে চা খান, নিমেষে কমবে ওজন

 

Please follow and like us:

Related posts